রুয়েটের ভেন্টিলেটর পর্যবেক্ষণ করলো রামেকের মেডিকেল টিম

  • 5
    Shares

নিজস্ব প্রতিবেদক:
করোনা রোগীদের চিকিৎসায় রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (রুয়েট) তৈরি ভেন্টিলেটর ব্যবহার উপযোগী কি না তা মেডিকেল টিমকে দেখিয়েছেন রাজশাহী-২ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা।
রুয়েটের ভেন্টিলেটর পর্যবেক্ষণ করেন মেডিকেল বিশেষজ্ঞরা

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতাল পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ফজলে হোসেন বাদশা সোমবার (২০ জুলাই) সকালে তিনি রাজশাহী মেডিকেল কলেজের একটি বিশেষজ্ঞ টিমকে রুয়েটে নিয়ে যান। এ সময় তারা রুয়েটে তৈরি ভেন্টিলেটরটির নানা দিক সম্পর্কে অবহিত হন।

বিশেষজ্ঞ টিমে ছিলেন রাজশাহী মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ও মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. বুলবুল হাসান, এ্যানেসথেসিয়া বিভাগের প্রধান জামিল রায়হান ও ডেন্টাল বিভাগের প্রধান ইসমাইল হোসেন। পরিদর্শন শেষে তারা বলেন, ছোটখাট কিছু কাজ করলেই ভেন্টিলেটরটি চিকিৎসা কাজে ব্যবহার করা যাবে। দ্রুত সময়ের মধ্যেই রুয়েট কর্তৃপক্ষ সেসব করে ফেলতে চান।

পরিদর্শনকালে রুয়েটের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. রফিকুল ইসলাম সেখ, ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার প্রফেসর ড. মো. সেলিম হোসেন, পরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) প্রফেসর ড. মিয়া জগলুল সাদাত, পরিচালক (গবেষণা ও সম্প্রসারণ) প্রফেসর ড. ফারুক হোসেন, পরিচালক (ছাত্রকল্যাণ) প্রফেসর ড. রবিউল আউয়াল, উপপরিচালক মামুনুর রশীদ, চিফ মেডিকেল অফিসার ডা. মকসেদ আলী, অফিসার্স সমিতির সাধারণ সম্পাদক মুফতি মাহমুদ রনি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, রুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মাসুদ রানার তত্ত্বাবধানে একদল শিক্ষার্থী দুই মাসের চেষ্টায় ভেন্টিলেটরটি তৈরি করেছেন। এর নাম দেয়া হয়েছে ‘দুর্বার কাণ্ডারি ইমার্জেন্সি ভেন্টিলেটর’। গত মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলন করে বিষয়টি জানানো হয়।

টিমের তত্ত্ববধায়ক এবং প্রকল্প পরিচালক অধ্যাপক ড. মাসুদ রানা বলেন, এ ভেন্টিলেটর অত্যন্ত দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি। এটি পরিচালনা করা অত্যন্ত সহজ এবং নিরাপদ। এই ভেন্টিলেটরটি বিশ্বের স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয় এমআইটি কর্তৃক করোনাকালে প্রস্তুতকৃত ইমাজেন্সি ভেন্টিলেটরের মডেল অনুসরণ করে সম্পূর্ণ নতুন আঙ্গিকে প্রস্তুত করা হয়েছে। মাত্র ৩০-৩৫ হাজার টাকা ব্যয়ে এটি প্রস্তুত করা সম্ভব।

তিনি বলেন, দেশীয় প্রযুক্তি ব্যবহার করে কেবলমাত্র করোনা আক্রান্ত রোগীদের চাহিদার কথা ভেবে দুর্বার কাণ্ডারি ইমার্জেন্সি ভেন্টিলেটর প্রস্তুত করা হয়েছে। বিশেষজ্ঞ টিম দু’একটি পরামর্শ দিয়েছেন। সেগুলো দ্রুত সময়ের মধ্যে করে ফেলা হবে। এরপর এটি রোগীদের অক্সিজেন দেয়ার কাজে ব্যবহার করা যাবে।

রাজলাইভ/এইচ.এ


  • 5
    Shares